Skip to content Skip to sidebar Skip to footer

Before Post

মোবাইলের জন্য ৫টি সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ

সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ

সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ: সোশ্যাল মিডিয়ার এই যুগে ফটো এডিটিং সহজ করতে আপনার হাতে থাকা অ্যান্ড্রয়েড ফোনের অনেক ফটো এডিটিং অ্যাপ রয়েছে। দ্রুত ফটো এডিটিং করতে আমরা সব সময় আমাদের অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি ব্যবহার করি।

{tocify} $title={Table of Contents}

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা অ্যান্ড্রয়েডের জন্য সেরা ৫টি ফটো এডিটিং অ্যাপ নিয়ে আলোচনা করবো।

আরো দেখুন:

আমার ব্যক্তিগত রিসার্চ ও অভিজ্ঞতা থেকে আমি এই সেরা ৫টি ফটো এডিটিং অ্যাপের লিস্ট করেছি। রুচি ভিন্নতা থাকার কারণে এই লিস্ট একেকজনের কাছে একেক রকম লাগতেও পারে।

সেরা ৫টি ফটো এডিটিং অ্যাপ

  • PicsArt
  • Snapseed
  • Lightroom
  • Pixellab
  • B162

PicsArt - সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ

PicsArt একটি অত্যাধুনিক ফটো এডিটিং অ্যাপ। এই অ্যাপে প্রায় তিন হাজারেরও বেশি টুল রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার ছবিকে অন্য লেভেলে নিয়ে যেতে পারবেন। সিম্পল ফটো এডিটিং থেকে শুরু করে প্রো লেভেল ফটো এডিটিং করতে এই অ্যাপ অনেক কার্যকর।

বিশেষ করে PicsArt এর ফিল্টারগুলি অত্যন্ত সুন্দর ও আকর্ষণীয়। PicsArt একাধারে ফটো এডিটর, ভিডিও এডিটর, স্টিকার মেকার, ফটো ইফেক্ট, ড্রয়িং টুল। মোবাইলে ফটো এডিটিং এর জগতে এটা গুগল প্লে স্টোরে #1 Grossing in Photography জায়গা দখল করে আছে। প্লে স্টোরে এই অ্যাপ এপর্যন্ত ৫০০ মিলিয়নেরও বেশি বার ইনস্টল হয়েছে।

Install PicsArt from Google Play

Snapseed - সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ

দেখতে সিম্পল ইন্টারফেস কিন্তু পাওয়ারফুল একটি ফটো এডিটিং অ্যাপ হলো এই Snapseed । বর্তমান সময়ের সর্বাধিক বহুল ব্যবহৃত এই অ্যাপটি গুগলের নিজস্ব ডেভেলপ করা। ছবির ব্রাইটনেস বাড়ানো কমানো থেকে শুরু করে একদম প্রিমিয়াম কোয়ালিটি ছবি এডিট করার জন্য স্ন্যাপসিডের জুড়ি নেই।

Snapseed এ কিছু ফিল্টার রয়েছে আর পাশাপাশি ২৯টি টুলস রয়েছে। আমার কাছে সবথেকে যে টুলটি ভালো লাগে সেটি হলো সিলেকশন টুল, এটির মাধ্যমে ছবির নির্দিষ্ট অংশ মার্ক করে ইডিট করা যায়। গুগলের ডেভেলপ করা এই অ্যাপটি একদম ফ্রি অর্থাৎ এটার কোনো প্রিমিয়াম ভার্সন নেই। গুগল প্লে স্টোরে Snapseed অ্যাপটি ১০০ মিলিয়নেরও বেশি ইনস্টল করা হয়েছে।

Install Snapseed from Google Play

Lightroom - সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ

ফটো এডিটিং জগতে নিঃসন্দেহে Adobe এর রাজত্ব। মূলত Adobe Lightroom CC এর মোবাইল ভার্সন হচ্ছে এই Lightroom। নামের সাথে পুরোপুরি এর ফিচারের মিল রয়েছে, এই অ্যাপে মূলত আলো নিয়েই খেলা হয়।

বিশেষ করে এই অ্যাপের প্রিসেটগুলো তরুণদের মধ্যে অনেক প্রিয়। এতে র (raw) ফাইল এডিট করা যায় বলে এডিটিং কোয়ালিটি লস থাকে না। এই অ্যাপের আমার সবথেকে প্রিয় ফিচারটি হলো এর প্রিসেট, হিলিং টুল, সিলেকটিভ ও নয়েস রিডাকশন টুলগুলো। বিশেষ করে যারা ফটোগ্রাফি করে তাদের ছবির কালার করেকশনের জন্য এই অ্যাপ সেরা। এই অ্যাপটিও গুগল প্লে স্টোরে ১০০ মিলিয়নের বেশি সময় ডাউনলোড করা হয়েছে।

Install Lightroom from Google Play

Pixellab - সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ

মোবাইলে ফটো এডিটিং ও ছবিতে লিখালিখি করতে যে অ্যাপটির ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলছে সেটিই হলো Pixellab । ব্যক্তিগতভাবে এই অ্যাপটি আমার অত্যন্ত প্রিয়। বিশেষ করে এই ব্লগে আপনারা যেসব ব্যানার, পোস্ট থাম্বনেইল দেখেন সেগুলো সবকিছু আমি Pixellab দিয়েই বানাই।

$ads={2}

এই অ্যাপের ট্যাগলাইনই হলো Pixellab - Text On Pictures, তবে সিম্পল কালার গ্রেডিং, ক্রপ, রিসাইজ এগুলো করা যাবে। এই অ্যাপটি মূলত ছবিতে লিখা যোগ করতে ডেভেলপ করা হয়েছে। এই অ্যাপের মাধ্যমে সাধারণ টেক্সট থেকে শুরু করে লোগো, ব্যানার, আর্ট ওয়ার্ক, ইউটিউব থাম্বনেইলের মতো প্রফেশনাল কাজ করা যাবে। এ পর্যন্ত গুগল প্লে স্টোরে এটি ৫০ মিলিয়নের বেশি বার ডাউনলোড হয়েছে।

Install Pixellab from Google Play

B162 - সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ

এই B162 অ্যাপটি যদিও বিউটি ক্যামেরা হিসেবে অত্যধিক পরিচিত তবে এটির মাধ্যমে অতিদ্রুত যেকোনো ছবি বা বিশেষত সেলফি এডিট করা যায়। এটিতে রয়েছে প্রায় শতাধিক আকর্ষণীয় ফিল্টার ও এডিটিং টুলস।

সবথেকে বড় কথা B162 দিয়ে রিয়েলটাইম বিউটি ইফেক্ট- এ ছবি তোলা যায়, তাই ছবি হয়ে উঠে প্রানব্রন্ত। এছাড়া গ্যালারির যেকোনো ছবিতে আবার বিউটি ইফেক্ট ব্যাবহার করে অতিদ্রুত এডিট করা যায়, অন্যান্য ফটো এডিটিং অ্যাপে সবকিছু ম্যানুয়ালি করতে হয়। তবে এই অ্যাপটি মেয়েদের কাছে বেশি জনপ্রিয় কারণ এতে রয়েছে ইনস্ট্যান্ট মেকআপের সুবিধা। এছাড়া হাজারো টুলস, স্টিকার ও দ্রুত ফটো এডিটিং করা যায় এই অ্যাপটি ৫০০ মিলিয়নেরও বেশি ডাউনলোড হয়েছে প্লে স্টোরে।

Install B162 from Google Play

এই ছিলো আমাদের আজকের আর্টিকেল ৫টি সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ যেগুলোর মাধ্যমে অনেক সুন্দরভাবে ফটো এডিটিং করতে পারবেন। ইউটিউবে বিভিন্ন টিউটোরিয়াল দেখে আপনিও ফটো এডিটিং এর প্রো হতে পারবেন।

আজকের এই ফটো এডিটিং নিয়ে আর্টিকেটি ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

ট্যাগ: ফটো এডিটিং অ্যাপসেরা ফটো এডিটিং অ্যাপমোবাইলের জন্য সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ