ডোমেইন কেনার আগে যে বিষয়গুলো জানা জরুরি

ব্লগ শুরু করার আগে আপনাকে একটা জিনিষ সবসময় মাথায় রাখতে হবে সেটা হচ্ছে আপনার ব্লগের পরিচয় কি। ব্লগ শুরু করার আগে আপনার পরিচয় কি সর্বপ্রথম বাছাই করে নিতে হবে ।

সারকথা হচ্ছে গিয়ে আপনাকে ব্লগ শুরু করার সর্ব উত্তম গুরুত্বপূর্ণ যে দিকটি হচ্ছে সেটা হচ্ছে ডোমেইন নেম।

আরও দেখুন: ব্লগ নাকি ইউটিউব: কোনটি থেকে বেশি আয় করা যায়? 

আর এই ডোমেইন নেমের হচ্ছে আপনার পরিচয় এবং আপনার ওয়েবসাইটের পরিচয় । এর মাধ্যমে একটি ব্লগ ইন্টারনেট জগতে একটি পরিচয় সংক্ষিপ্ত আকারে সবার সামনে তুলে ধরে।

ডোমেইন নেওয়ার আগে জেনে নিন

বিভিন্ন সাইট থেকে যেমন সার্চ ইঞ্জিন থেকে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে যে ভিজিটর গুলো এসেছে সেগুলো স্বভাবতই আমাদের ডোমেইন নেমের ওপর নির্ভর করে কিন্তু আসেন ।

তাই সবার আগে আপনাকে এই জিনিসটা মাথায় রাখতে হবে যে আমার ডোমেইন নাম হতে হবে খুবই সুন্দর সাবলীল। আপনি যদি সফল হতে চান তাহলে আপনার ডোমেইন নেমের কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা আপনি কি বুঝতে পারছেন এখন । 

তাই এত তড়িঘড়ি না করে এখনি আপনাকে যাচাই-বাছাই করে একটি ডোমেইন নেইম নিতে হবে - এবং সুযোগ নিয়ে নিলে কিন্তু হবেনা আপনাকে কিছু বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে।

এক গবেষণায় দেখা গেছে প্রায় ৯০ পারসেন্ট মানুষ ডোমেইন সম্পর্কিত সাধারণ ধারণা তাদের নেই বললেই চলে।

এর ফলে একটি অনেক বড় সমস্যা হয় সেটা হচ্ছে যে তাদের ব্র্যান্ডিং নেম এবং সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের খুব সমস্যা দেখা দেয়। 

এখন যদি আপনি কিছু না করেন তখন কিন্তু আপনার করার কিছুই থাকবে না তাই ডোমেইন নেম বাছাই করার আগেও আপনাকে কিছু বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে

কেননা আপনার ডোমেইন অলরেডি গুগলের কাছে হস্তান্তর হয়ে গেছে সেট হয়ে গেছে যার কারণে আপনি পরবর্তীতে কোন কিছুই করতে পারবেন না।

তাই যা করার এখনই আপনাকে করতে হবে এবং যাচাই-বাছাই পুরোদমে করে নিতে হবে ।

তাই ডোমেইন কেনার আগে আপনাকে ডোমেইন কেনার কিছু সাধারণ নিয়ম আপনার জেনে রাখা দরকার। আপনার যদি ডোমেইন কেনার আগে যে বিষয়গুলো লক্ষ্য রাখেন তাহলে ভবিষ্যতে আপনার জন্যও অনেক লাভজনক হবে এবং আপনি খুব সহজে ব্র্যান্ডিং নেম এবং এসইও করতে পারবেন।

ডোমেইন কেনার আগে যে বিষয়গুলো আপনার দেখতে হবেই হবে

আমি জানি আপনি অনেক দিন ধরে ইন্টারনেটে পড়ে আছেন এবং বিভিন্ন বিষয় জানতে চাচ্ছেন এবং অনেক কিছু জেনেও গেছেন কিন্তু ডোমেইন সম্পর্কে হয়তো আপনার জ্ঞান খুব কম আছে মোটামুটি। আমি একজন ছোটমোটো ব্লগার কিন্তু আমারও কিন্তু প্রথমে এত জ্ঞান ছিল না বা এখনও আছে কিন্তু খুব স্বল্প পরিসর।

তবে যেহেতু অনেক দিনের ব্লগিং করছি ভূমিকা নিয়ে ঘাটাঘাটি করছে এ বিষয়ে ন্যূনতম হল জ্ঞান থাকার ফলে ভালো একটা অভিজ্ঞতা কিন্তু আমার এখন আছে।

আরও দেখুন: নতুন ব্লগারেরা যে ৯ টি ভুল করে থাকে

প্রথমে যখন আমি ব্লগিং করেছিলাম আমার প্রচন্ড ধরনের অনেক ভুল-ভ্রান্তি হয়েছিল , হ্যালো অনেকদিন স্ট্রাগল করে আজ এই পর্যন্ত আসতে পেরেছি কিন্তু আমি চাইনা যে আপনার আমার মত এত দিন ধরে কষ্ট করেন আমি চাই আপনারা আমার মাধ্যমে খুব সহজেই এই বিষয়গুলো জানেন এবং সে অনুযায়ী কাজ করতে থাকেন।

প্রথমে আপনার খেয়াল করে দেখবেন যে আমরা প্রথম যখন ডোমেইন কিনতে যাই তখন আমরা খুব অল্প পরিসরে কিন্তু ধোঁকা খাই বা বিভ্রান্তি হই।

কারণ কেউ চায়না যে তাদের ডোমেইন কেনার সময় কোনো ভুলভ্রান্তি হোক বা এই ধরনের কোন কিছু। তাই আজ আমরা একটি সেরা ডোমেইন কিভাবে আপনি পেতে পারেন এই বিষয়ে আমি কিছু একদম একদম সহজ আপনাদেরকে বলবো খুব সহজ ভাষায় তাহলে চলুন আমরা আমাদের গন্তব্য স্থানে চলে যাই।

ডোমেইন নাম সিলেক্ট কিছু গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম

তাহলে চলুন আমরা আস্তে আস্তে আমাদের গন্তব্য স্থল আমরা একটি সেরা জমিন কিনব এ বিষয়ে কিছু ইনফরমেশন জেনে আসি।

টপ লেভেল ডোমেইন সেলেকশন

যখন আমরা টপ লেভেল ডোমেইন এর কথা বলছি বলবো তখনই একটি কথা আমাদের মাথায় আসে যে আমরা আলাদা আলাদা এক্সটেনশন এর ডোমেন এর কথা বলছি যেমন নিচে দেখুন।

ডটকম, ডট ইনফো, ডট এডু, ডট ওআরজি, এবং সর্বশেষ ডট নেট ইত্যাদি ইত্যাদি।

যখন আমরা এই পর্যায়ে কথা বলছি তখন হয়তোবা অনেকেই জানেন না যে এই ডোমেইন এক্সটেনশন টা কি। আপনাদেরকে বলবো তাহলে আজ আপনারা জেনে নিন বাংলাদেশের সবথেকে ইনফর্মেশন কিছু তথ্য যা আপনারা কখনো পাননি!

প্রত্যেকটা আলাদা আলাদা এক্সটেনশন আলাদা আলাদা মানে অর্থ রয়েছে। যেমন ধরুন:

  • .Com = কমার্শিয়াল ওয়েবসাইটের জন্য ব্যবহৃত এই ডোমেইন।
  • .Net =নেটওয়ার্ক অর্গানাইজেশন এর সাথে জড়িত সব সাইটের জন্য এই ডোমেইন ব্যবহৃত হয়।
  • .Org =অর্গানাইজেশন সম্পর্কিত সকল ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেইন ব্যবহৃত হয়
  • .Gov =সরকারি ওয়েবসাইট এর সাথে সম্পর্কিত ডোমেইন ব্যবহৃত হয়।
  • .Edu =শিক্ষা সম্পর্কিত ওয়েবসাইট সমূহ জন্য ব্যবহৃত ডোমেইন ।
  • .Info=ইনফর্মেশন সম্পর্কিত ওয়েবসাইট এর জন্য ব্যবহৃত ডোমেইন।

এবার তো জেনে গেলেন যে কোনটা ছেড়ে কোনটা রিলেটেড টু আপনি যেটা যে বিষয়ে ব্লক বাটিকের করতে চাচ্ছেন সেই বিষয়ে আপনার ডোমেইন সিলেকশন করুন এখান থেকে।

কোন ডোমেইন সিলেকশন করব?

বর্তমান সময়ে ডটকম সবচেয়ে পপুলার এটাই সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। তাই আমি এখন আপনাদের সাজেস্ট করব যেটা ডটকম ডোমেইন নেওয়ার জন্য।

সঠিক ডোমেইন সিলেকশন

এছাড়া যারা ইন্টারনেট সম্বন্ধে জ্ঞান দেয় কিন্তু এটা একটা ব্র্যান্ড হয়ে গেছে dot কম নামে সার্চ করে টাইপ করে থাকে। প্রত্যেকটি মানুষের এই একটা চিন্তা-ভাবনা চলে আসছে যে একটি ওয়েবসাইটের নাম এর পরে তারা .com এক্সটেনশনটি ব্যবহার করে । তাই স্বভাবতই যে বলা যায় যে এটি পৃথিবীর মধ্যে সবথেকে জনপ্রিয় একটি এক্সটেনশন আমাদের উচিত যে এই ডট কম ব্যবহার করাটাই সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ।

বর্তমানে সবথেকে কম দামে পাওয়া ডোমেইনটি হলো .xyz ডোমেইন। এটিও কিন্তূ একটি টপ লেভেল ডোমেইন। বর্তমানে এটির জনপ্রিয়তা কিন্তু অনেক বাড়ছে।

তবে আপনি যদি মনে করেন আপনার ওয়েবসাইটে টেকনোলজি সম্পর্কিত তাহলে আপনি .info .net নিতে পারেন ।

আরও দেখুন: ব্যাকলিংক কি? কিভাবে ব্যাকলিংক তৈরি করবেন?

কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন (cCTLD)

এতক্ষণ যা জানলাম সেগুলো ছিল জেনেরিক লেভেল ডোমেইন বাট এখন আমরা কথা বলব একটু অন্য টাইপের ডোমেইন। এখন কথা বলব কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন।

আপনি ধরেন ইন্ডিয়ান অডিয়েন্স নিয়ে কাজ করছেন আপনার উদ্দেশ্য হচ্ছে ইন্ডিয়ান ট্রাফিক। আপনার টার্গেট এর কান্ট্রি হচ্ছে ইন্ডিয়া। আপনার টার্গেট থাকবে ইন্ডিয়ান ভিজিটর, আপনি কন্টেন্ট তৈরি করেছেন ভারতের উপর তাই আপনার ভিজিটর আসবে কিন্তু ভারতের থেকে । এইজন্য কি আপনি ডটকমে নিবেন? না আপনি কখনো নিবেন না, আপনি নিবেন ডট ইন।

একটু সহজ ভাষায় বুঝিয়ে বলছি ‍‌‌।

যদি আমাদের কনটেন্ট শুধুমাত্র ভারত বা পাকিস্তানের উপর নির্ভর করে বানাতাম তাহলে আমরা আমাদের সাইটের নাম দিতাম বঙ্গ উইকি ডট ইন। এছাড়া আমরা যদি না চাইতাম ইন্ডিয়ান টার্গেটেড না করতাম তাহলে আমরা ব্যবহার করতাম ডট কম ডট বিডি ।

হ্যাঁ আপনি তাহলে ঠিকই এখন বুঝে গেছেন যে কোন দেশের টার্গেট অডিয়েন্স নিয়ে যে আমি কাজ করি তাহলে ওই যে সে টপ লেভেল কান্ট্রি কোড ব্যবহার করতে হবে ইন্ডিয়ার জন্য ইন বাংলাদেশের জন্য ডট বিডি।

এখানে আমি নিচে কিছু কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন এর লিস্ট দিয়ে দিচ্ছি দেখতে পারেন....

  • COM.BD =বাংলাদেশিদের জন্য ডটবিডি ব্যবহার করা হয়.
  • .CN=চীন দেশের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয় ডোমেইনগুলো।
  • .IN =ভারতের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য এই ডোমেইন ।
  • .FR=ফ্রান্সের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ডোমেইন।

এই ধরনের কান্ট্রি কোড টা অনেক রয়েছে, বিভিন্ন দেশের টার্গেট দিয়েছে সেগুলো ব্যবহার করা হয়।

এখন আপনি আমাকে এই প্রশ্নটিই ছুড়ে মারতে পারেন যে এই কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন ব্যবহার করার লাভ কি।

এ কান্ট্রি কোড ব্যবহার করার ক্ষেত্রে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কেন আপনি যখন কোন একটা দেশকে কান্ট্রি সিলেকশন করে কনটেন্ট বানাবেন তখন সেটা আপনার সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর জন্য যেমন ভাল ঠিক তেমনি সেইসব ভিজিটর দের জন্য খুব উপকারী।

আরও দেখুন: কেন ডিজিটাল মার্কেটিং করবেন? ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের গুরুত্ব

আমি এখানে আপনাদের একটি কথা বলতে চাই যে আপনারা যদি কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন যদি আপনারা নিতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার জন্য উপকারী কেননা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর জন্য এটা খুবই হেল্প করবে আপনার রেংকিং টা বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য ।

কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর জন্য খুবই শক্তিশালী কেননা সার্চ ইঞ্জিন বুঝতে পারে যা আপনার কনটেন্ট কোন দেশের জন্য এবং এটা খুব সহজে আপনার পেইজে খুব সহজে তাড়াতাড়ি চলে আসে।

তাই যখন কোন একটি কান্ট্রি কোড অফ লেভেল ডোমেইনের হয়ে থাকে তখন সেটা সহজে অনুমান করতে পারে এটা কোন দেশের কোন ভৌগলিক মানুষদের জন্য এবং কেমন মানুষদের জন্য এটা তৈরি করা হয়েছে । এছাড়া আপনি খুব সহজেই একটি বিশাল পরিমাণ সার্চ ইঞ্জিন রেংকিং ফ্যাক্টর বুঝতে পারবেন।

অন্যান্য দলগুলোর থেকে কান্ট্রি কোড অফ লেভেল ডোমেইনের সার্চ ভ্যালু অনেক বেশি কেননা গুগোল বুঝতে সক্ষম হয় যে আপনার কনটেন্ট কোন দেশের জন্য কেমন ধরনের জন্য বানানো হয়েছে।

তাই আপনি ডোমেইন কেনার আগে অবশ্যই কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন এর বিষয়টিও মাথায় রাখবেন যাতে আপনার সার্চ ইঞ্জিনের কোন ক্ষেত্রে কোন ধরনের ভুল ত্রুটি না হয়।

এটা কিন্তু তখনই যখন আপনার কনটেন্ট গুলো নির্দিষ্ট একটি দেশের ভৌগলিক মানুষদের জন্য তৈরি করা হয়ে থাকে। যদি আপনি নির্দিষ্ট কোন দেশের জন্য কন্ঠের না তৈরি করেন বিভিন্ন দেশের জন্য করে থাকেন তাহলে কিন্তু কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন আপনার জন্য না আমি আগেই বলে দিয়েছি পরিষ্কারভাবে পরে আবার এই বিষয় নিয়ে কোন মাথা গোলা করবেন না।

ডোমেইন কুপন কোড

টাকা এই জিনিস টা সবার প্রয়োজন কাকার কেন্দুয়া বাবু সবারই থাকে কিন্তু যারা নতুন ব্লগার তাহলে তো কোনো অভাব এর কোন সীমাই থাকেনা। টাকার জন্য আমরা হোস্টিং এবং ডোমেইন অনেক সীমিত পরিসরে কিনে থাকি।

ডোমেইন কুপন কোড এগুলো আপনার যদি না জানেন তাহলে এখন বলে দিচ্ছি যে আপনারা যদি নতুন ব্লগার হন তাহলে ডোমেইন কেনার আগে অবশ্যই কুপন কোড দেখার চেষ্টা করবেন যে কোথায় কুপন কোড আছে কারণ কুপন কোড এর মাধ্যমে আপনার কিন্তু অল্প টাকায় অনেক ভালো ধরনের ডোমেইন এবং হোস্টিং পাবেন।

এগুলো খোঁজার জন্য আপনাদেরকে বলতে পারি যে গুগোল আপনি সার্চ করবেন লো বাজেট ডোমেইন কুপন কোড। আপনি সেখানে দেখতে পাবেন বর্তমান সময়ে কিছু সেরা ডোমেইনের ডিসকাউন্ট ।

সারা পৃথিবীতে নামকরা কিছু ডোমেইন হোস্টিং সাইট আছে যারা কিনা খুব অল্প টাকায় কুপন এর মাধ্যমে তারা ডোমেইন এবং হোস্টিং দিয়ে থাকে। এর মাধ্যমে আপনারা খুব সহজেই প্রায় 80% টাকা আপনি কুপন কোড এর মাধ্যমে টাকা বাঁচিয়ে তুলতে পারবেন।

ডোমেইনে কিওয়ার্ড ব্যবহার করুন

ডোমের আপনার সাইটের নাম পরিচয় বহন করে থাকে যেহেতু সেহেতু আপনার ডোমেইন এর কিছু টার্গেটেড কিওয়ার্ড রয়েছে যাতে করে আপনি খুব সহজেই টার্গেট অডিয়েন্স এর মাধ্যমে তাদের কাছে পৌঁছাতে পারেন । এতে করে কি হবে গুগোল সহ অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনগুলো এই সাইট থেকে খুঁজতে খুব সুবিধা হবে ।

একটি উদাহরণের মাধ্যমে আপনাদেরকে দেখা যাচ্ছি যে বাংলাদেশের সবথেকে জনপ্রিয় মোবাইল রিভিউ সাইটের নাম mobiledokan.com । খেয়াল করুন তাদের ডোমেইনে কিন্তু মেইন কীওয়ার্ড চলে এসেছে।

আপনার ব্লগের ডোমেইনের কিওয়ার্ড রিসার্চ করা আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ কেননা যারা গুগল সার্চ ইঞ্জিন সহজে বুঝতে পারবে আপনি কি বিষয়ে ব্লগ বানিয়েছেন এবং কি ধরনের পোস্ট আপনি করেছেন।

তাই আপনার ব্লগে যদি ভাল মানের কনটেন্ট থাকে এবং স্যারের সাথে ভালো ইউজার এক্সপেরিয়েন্স থাকে এবং তার সাথে যদি ভালো কি ওয়ার্ড থাকে তাহলে তো কেল্লাফতে আপনি গুগলের প্রথম পেজে চলে আসা কোন ব্যাপারই না। যারা নতুন ব্লগার তারা‌ অনপেজ এসইও নিয়ে সন্দেহ থাকে এবং এ বিষয়ে কোনো লাভ কোনো কিছুই পায় না।

ডোমেইনের নাম ছোট দেবেন

আমি এ বিষয়ে অনেক তথ্য দিয়েছি যে আপনার ডোমেইন নাম কি কীওয়ার্ড রিলেটেড হতে হবে তবে আরেকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে যে আপনার ডোমেইন নাম কি ছোট হতে হবে।

কেননা ডোমেইন নাম ছোট রাখতে হবেই কেননা যারা ইউজার তারা খুব সহজেই আপনার সাইট এর নাম থেকে মনে রাখতে পারবে । এর ফলাফল হবে আপনার ওয়েবসাইটের নাম লিখে সার্চ করবেন তারপর আপনার ওয়েবসাইটে ঢুকে যাবে ।

এতে কি হবে আর একটু ঘুরা হবে সেটা হচ্ছে ডিরেক্ট ট্রাফিক আপনি বেরিয়ে গেলেন। এতে গুগলের কাছে আপনার সাইটের রেঙ্ক বেড়ে যাবে।

এছাড়া আপনার একটি জিনিস মনে রাখবেন যে নাম যত ছোট হবে তত বেশি আপনার ডোমেইন টি branding তৈরি হবে। এর চাইতে হবে যে আপনি ডাইরেক্ট গুগলের থেকে ট্রাফিক পাবেন এবং ডিরেক্ট ভিজিটর পাবেন।

একটা জিনিস সবসময় মনে রাখবেন যত বড় হবে সাইটের নাম হবে তত বেশি মনে রাখাও কঠিন হবে। এক্ষেত্রে ব্র্যান্ডিং করাটাও খুব কঠিন হয়ে দাঁড়াবে আপনার জন্য ।

তাই সব সময় ছোট নাম রাখার চেষ্টা করবেন এবং সেখান থেকে কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটের হিউজ পরিমান ভিজিটর পেয়ে যাবেন ।

সাবলীল ভাষায় ডোমেইন নাম নির্বাচন করা

এবার আমরা কথা বলবো যে কিভাবে ডোমেইন নাম নির্বাচন করা যায় আপনি চিন্তা করুন যে আপনার ছোট আকারের যদি ডোমেইন নাম নির্বাচন করেন তাহলে কিন্তু হবেনা আপনাকে সিম্পল ওয়ার্ড এর মধ্যে ইউনিক আকারের ডোমেইন নেইম নির্বাচন করতে হবে ।

কারণ যত শুদ্ধ এবং সাবলীল ভাষায় আপনি ডোমেইন নাম নির্বাচন করবেন তত বেশি মানুষের আকর্ষণের কারণ হবেন।

আপনি যখন সহজ ভাষায় ডোমেইন নাম নির্বাচন করবেন তখন সেটা ভিউয়ারদের মনে থাকবে এবং আপনি সেখান থেকে হিউজ পরিমান এর ট্রাফিক পেয়ে যাবেন ।

আর একটি কথা মনে রাখবেন যতই আপনি সহজ ভাষায় ডোমেইন নাম নির্বাচন করবেন তত বেশি আপনার চান্স থাকবে যে আপনি ভিজিটর দের কে আপনার সাইট নাম মনে রাখতে পারবেন। এটিও একটি ব্র্যান্ডিংয়ের পরিণত হবে।

তাই নাম নির্বাচন করার সময় সাবলীল ভাষায় ডোমেইন নাম নির্বাচন করবেন। এই পয়েন্টে কখনোই ভুলবেন না মিস করবেন না।

ডোমেইন রেজিস্টার ভালো সাইট

যে কোম্পানি থেকে আপনার ডোমেইন কিনবেন সে কোম্পানিতে ডোমেইন রেজিস্টার করতে হবে আপনাকে ।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে ভালো কোম্পানি থেকে যদি আপনি ডোমেইন কিনেন তাহলে ভালো ব্যাকআপ পাবেন কিন্তু খারাপ কোম্পানি থেকে কখনোই তা পাবেন না।

আমরা যদি একটি ব্লগ শুরু করি তাহলে সেটা তো আর এক দুই দিনের জন্য নয় তাই এটিকে দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য ভালো একটি ডোমেইন রেজিস্টার সাইট প্রয়োজন যারা কিনা ভালো মানের সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে বছরের পর বছর তাদের থেকে ডোমেইন রেজিস্টার করে নিতে হবে

তাছাড়া সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করার ক্ষেত্রে ইনকাম ব্র্যান্ডিং সবকিছু নির্ভর করছে এই ডোমেইন এর উপর ।

শেষ কথা 

ডোমেইন তো কিনতে হবে তাই কেনার আগে এই বিষয় গুলা অবশ্য করনীয়। একটি ব্লগিং সাইট যদি আপনি চালাতে চাই তবে এই বিষয় গুলা জেনে রাখা উচিত।

কারন এখন একটি ব্লগ চালানো আর জমি জমা চাষ করা একই ব্যাপার। ডোমেইন একবার সেট হয়ে গেলে পরে আর সেট করা কঠিন হয়ে পড়ে।

তাই প্রথমে যাছাই বাছাই করে নেওয়া দরকার তবেই আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ার সু সফল হবে মনে করি।

তাই আমার একটি ছোট্ট অপিনয়ন হলো ডোমেইন কেনার আগে আপনাকে উপরে বলা কিছু নিয়ম কানুন অবশ্যই মানতে হবে৷ না মানলে ব্লগিং করা আপনার জন্য কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

তো আজ এই পর্যন্তই ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন।

Article Top Ads

Ad Middle Article 1

Ad Middle Article 2

Ads Under Articles